ফ্রীল্যান্সিং কি এবং কিভাবে শুরু করবেন -( What is Freelancing ? )

ফ্রীল্যান্সিং কি জেনে বিস্তারিত স্বাধীন পেশার আরেক নাম হলো ফ্রীল্যান্সিং। মূল পেশার সাথে পার্ট-টাইম আমরা কাজ হিসাবে যেমন ফ্রীল্যান্সিং করা যায় তেমনি এটিকে মূল পেশা হিসেবে নিয়ে জীবিকা নির্বাহ ও করা সম্ভব হয়। তার জন্য প্রয়োজন অধ্যাবসায় সাথে ইচ্ছাশক্তি। আসুন জেনে নেওয়া যাক, ফ্রীল্যান্সিং কি  এবং কিভাবে শুরু করবেন । ( What is Freelancing ? )

অনলাইনে অর্থের বিনিময় একজনের কাজ অন্য জন কে দিয়ে করানো ই হলো ফ্রীল্যান্সিং। শিক্ষা জীবন বা কর্ম জীবন যেকোনো সময় নিজের ইচ্ছামত ফ্রীল্যান্সিং শিখে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। এই লেখার মাধ্যমে আমরা জানবো যে ফ্রীল্যান্সিং কি এবং কিভাবে এটি শুরু করা যাবে।

 

ফ্রীল্যান্সিং কিভাবে শিখবেনঃ

আজ বর্তমানে ফ্রীল্যান্সিং কে প্রথম সারির আয়ের উৎস হিসাবে ধরা হয়ে থাকে। এই ফ্রীল্যান্সিং নিজস্ব অর্থায়নে এবং সরকারি অর্থায়নে উভয় ভাবেই শেখা সম্ভব হয়। আমরা সরকারের (LEDP) লার্নিং এন্ড আর্নিং প্রকল্পের আওতায় রেজিষ্ট্রেশন করে অথবা বিভিন্ন প্রকল্পের অধিনে রেজিষ্ট্রেশন করে প্রশিক্ষণ নিতে পারি। সরকারি ভাবে ছাড়াও ব্যক্তিগত ভাবে বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে প্রশিক্ষণ নিতে পারি। এইসকল প্রশিক্ষণ বাদে ইউটিউবে নানা ধরণে ভিডিও আর নিজের অদম্য ইচ্ছার বিনিময় ফ্রীল্যান্সিং শেখাতে  পারি।

আসলে যেকোনো পেশার জন্য চাই দক্ষতা । ফ্রীল্যান্সিং করে এই দক্ষতা অফলাইন এবং অনলাইন দুইভাবেই অর্জন করা যায়। এর জন্য যে যে পদক্ষেপ অনুসরণ করা যেতে পারে-

প্রথমত,

আসলে ফ্রীল্যান্সিং কোনো একক বিষয় না। কতক গুলো বিষয় বা সেক্টর এর সমন্বয়ে গঠিত হয় – ফ্রীল্যান্সিং। যেমন- ওয়েব ডেভেলপিং, ওয়েব ডিজাইন,  গ্রাফিক্স ডিজাইন, সফটওয়্যার ডেভেলপিং,ভিডিও এডিটিং , ডিজিটাল মার্কেটিং, ইত্যাদি আরো অনেক বিষয় আছে যা ফ্রীল্যান্সিং  । এগুলোর মধ্যে থেকে নিজের আগ্রহ অনুযায়ী বিষয় নির্ধারণ করে নিতে হবে ।

 

দ্বিতীয়ত,

সফলতার জন্য চাই পেশাগত জ্ঞান আর দক্ষতা। আগ্রহ অনুযায়ী ফ্রীল্যান্সিং এর সেক্টরসমূহ নির্বাচন করে সেগুলোর উপর দক্ষতা অর্জন করতে হবে আমাদের। অফলাইন বা অনলাইন যেকোন ভাবেই প্রশিক্ষণ নিয়ে দক্ষতা অর্জন সম্ভব।

অনলাইনে প্রশিক্ষণঃ

বর্তমান প্রেক্ষাপটে বলা যায় অফলাইনের তুলনায় অনলাইন প্রশিক্ষণ ই ভালো। ইউটিউব বা গুগলে সার্চ দিয়ে হাজার হাজার টিউটোরিয়াল ভিডিও পাওয়া যায়। এছাড়াও কিছু স্বনামধন্য ওয়েবসাইটের মাধ্যমে শেখা যায়। যেমন- W3Schools, LearnDesx.com ইত্যাদি।

একটু ধৈর্য থাকলে প্রায় সবকিছু বিনামূল্যে এই সাইট গুলো থেকে অনেক কাজ শেখা যায়। যদিও আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে সার্টিফিকেট পাওয়ার জন্য টাকা গুনতে হয় । এই সাইট গুলোর একেকটার থেকে একেক ধরনের প্রশিক্ষণ নেওয়া যাবে । যেমন- হাতে কলমে HTML শিখার জন্য W3Shools ও Learndesx.com সাইটটি সেরা ।

অফলাইনে প্রশিক্ষণঃ

বর্তমানে বাংলাদেশে বেশ কিছুই প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যেখান থেকে আমরা নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর কোর্স করতে পারি । এ-ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানে যেয়ে হাতে কলমে কাজ শিখে নেওয়া যায় অথবা তবে অফলাইনে কোর্স বাবদ অর্থ প্রাদান করতে হবে যার বিনিময়ে মিলবে প্রশিক্ষন এবং সার্টিফিকেট পাওয়া যায়।

 

তৃতীয়ত,

শুধুমাত্র প্রশিক্ষণ নিলেই হবে না আমাদের । ফ্রীল্যান্সিং এর জন্য চাই প্রচুর অনুশীলন। যত বেশি অনুশীলন তত বেশী দক্ষ হওয়া ওঠা যায়। পারিশ্রমিক এর জন্য আবার অভিজ্ঞতা নির্ভর করে। তাই প্রথম দিকে অভিজ্ঞতার জন্য আমাদের প্রয়োজনে বিনামূল্যে কাজ করে দিতে হবে। তবে বিনামূল্যে কাজ করার ক্ষেত্রে মাথায় রাখতে হবে যেন কাজের পরিমাণ ও বেশি বা অতিরিক্ত না হয়। তাহলে আবার নিজের মূল্য কমে যেতে পারে। এক্ষেত্রে আবার সব চেয়ে সুন্দর উপায় হচ্ছে ফ্রী সোর্স ব্যবহার করে কাজ করা।

অনলাইন জগতে যে সোর্স বা সফটওয়্যার গুলো প্রথম থেকেই টাকা ব্যয় না করে ও ফ্রীতে ব্যবহার করা যায় সেগুলো কে ফ্রী সোর্স বলা হয়

। এইগুলোতে কাজ করে এবং ঘাটাঘাটি করে অভিজ্ঞতা অর্জন সম্ভব হয় ।

ফ্রীল্যান্সিং কি
ফ্রীল্যান্সিং কি

আসুন এবার ফ্রীল্যান্সিং এর কাজ কীভাবে এবং কোথায় থেকে পাওয়া যাবেঃ  ফ্রীল্যান্সিং এ কাজ করার জন্য অনেক অনেক রকম ওয়েবসাইট আছে । এই সকল অনলাইন প্লাটফর্ম বা ওয়েবসাইটে যুক্ত থেকে ফ্রীল্যান্সিং এর কাজ করতে হয় । ফ্রীল্যান্সিং এর কিছু সাইট-

upwork

Freelancer

Fiverr

FlexjObs

CloudPeeps

Solidgis

Indeed

Guru

Dribble

99design

এই সাইটগুলোতে ঘন্টা, দিন বা মাস হিসেবেও কাজ খুজে নেওয়ার সুযোগ রয়েছেন । কাজ খোঁজার জন্য এই সাইটগুলোতে একাউন্ট খুলে নিজের পোফাইল সাজাতে হয়। প্রফাইলে যে যে বিষয়ে অভিজ্ঞতা আছে সেগুলো সম্পর্কে পোর্টফলিও সাজাতে হয় এবং কাজ সম্পর্কে গিগ খুলতে হয়। কাজ পাওয়ার জন্য কাংখিত ক্লায়েন্টকে সুন্দর করে কাজ নিয়ে মেসেজ দিতে হয় । ক্লায়েন্ট বা বায়ার  এর যদি আপানার কাজ বা পোর্টফলিও পছন্দ হয় তবেই আপনি কাজ পেতে পারবেন।

করোনার সময়টায় অনেকে চাকরি হারিয়েছেন, আবার অনেকে ভাগ্যে ফের বেকারত্বের সিল পড়েছে। তাই ঘরে বসে ফ্রীল্যান্সিং শিখে নিজের ভাগ্যকে পরিবর্তন করার সুযোগ লুফে নেওয়ার সময় এখনই। ফ্রীল্যান্সিং শিখে স্ব-ইচ্ছায় স্বনির্ভর হয়ে বেকারত্বের অভিশাপ সহজেই লাঘব করা সম্ভব হয় ।

সাথেই থাকার জন্য ধন্যবাদ :

আরো জানি

4 Comments

  1. When someone writes an piece of writing he/she retains
    the idea of a user in his/her mind that how a user can know it.
    Therefore that’s why this piece of writing is perfect.
    Thanks!

Leave a Reply

Your email address will not be published.